Friday, August 26, 2011

শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র এখনও চলছে: আওয়ামী লীগ

শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র এখনও চলছে: আওয়ামী লীগ
শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র এখনও চলছে: আওয়ামী লীগ
এ দেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবে, ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলারও বিচার হবে: আওয়ামী লীগ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র এখনও চলছে। সে ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের ক্ষেত্র প্রস্তুতের চেষ্টাও চলছে। কিছু কিছু মিডিয়া অতিরঞ্জিত সংবাদ পরিবেশন করে এ ক্ষেত্র প্রস্তুতে সহযোগিতা করছে। এ বিষয়ে সজাগ থাকার জন্য দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। অন্যদিকে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরাপত্তায় অত্যন্ত সতর্ক থাকতে হবে। শেখ হাসিনাকে হত্যাই ছিল ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মূল লক্ষ্য।  ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট খুনিদের পরিকল্পনা ছিল কেবল বঙ্গবন্ধুই নন, তার পরিবারের সবাইকেই হত্যা করার। এরই ধারাবাহিকতায় শেখ হাসিনার দেশে ফেরার পর নতুন করে তাকেও হত্যার ষড়যন্ত্র শুরু হয়। সেই ষড়যন্ত্র এখনও চলছে। যে কোনো সময় সুযোগ পেলেই তাকে হত্যা করা হতে পারে। আওয়ামী লীগের ঐক্য নষ্ট করতে অনেকে অনেক কথা বলছেন। অতীতেও আমরা ঐক্যবদ্ধ ছিলাম, আগামীতেও থাকব। শেখ হাসিনা নেতৃত্বে থেকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। যত ষড়যন্ত্রই হোক না কেন, এ দেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবেই। তবে তার আগে ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার বিচার হওয়া উচিত। 'সব সাংবাদিকই সাংবাদিক নন। সব সংবাদপত্রই সংবাদপত্র নয়।
সব খবরও বস্তুনিষ্ঠ নয়। এখানে এমন একটি পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে, যাতে নেতায় নেতায় দ্বন্দ্ব; মন্ত্রী ও এমপির সঙ্গে কর্র্মীদের এবং সরকারের সঙ্গে আওয়ামী লীগের দূরত্ব সৃষ্টি হয়। কেননা, তারা জানে আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ ও সজাগ থাকলে কোনো ষড়যন্ত্রই বাস্তবায়িত হবে না। তাই অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে আমাদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টা চালানো হচ্ছে।আমাদের কি সংসদ, গণতন্ত্র ও নেতৃত্বের অভাব পড়েছে? দেশ কি দুর্নীতিতে ভরে গেছে যে, আমাদেরও আন্না হাজারের প্রয়োজন হবে? ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সাত বছর পর বিএনপি নেতারা হঠাৎ প্রেস কনফারেন্স করে বলছেন, জজ মিয়াই এই ঘটনা ঘটিয়েছে। এটা আদালতের বিচারাধীন বিষয়। একটি রাজনৈতিক দলের প্রেস কনফারেন্স কিংবা প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এ বিষয়ে কোনো কথা বলা অপরাধ। এ বিষয়ে আপনাদের কোনো বক্তব্য কিংবা প্রশ্ন থাকলে সেটা আদালতে গিয়েই বলবেন। কিন্তু এটা নিয়ে রাজনৈতিক ইস্যু তৈরির চেষ্টা করবেন না। কোনো লাভও হবে না। ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলা করে হত্যার বিচার অবশ্যই বাংলাদেশের মাটিতে হবে। অপরাধীদের ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলতেই হবে।'
২১ আগস্টের মূল পরিকল্পনাকারী ও খুনিদের আড়াল করতে সেদিন তারা জজ মিয়া নাটক তৈরি করতে চেয়েছিল। বাংলার মানুষ সেই নাটক শেষ করতে দেয়নি। বঙ্গবল্পুব্দ হত্যার বিচার ও রায় কার্যকর হয়েছে। এবার গ্রেনেড হামলায় প্রকৃত জড়িতদের বিচারও হবে। শাস্তিও কার্যকর হবে। 

Saturday, August 6, 2011

FATHER OF THE BENGALI NATION

BANGABANDHU SHEIKH MUJIBUR RAHMAN
He is not a mere individual. He in an institution. A movement. A revolution. An upsurge. He is the architect of the nation. He is the essence of epic poetry and he is history. 

This history goes back a thousand years. Which is why contemporary history has recognized him as the greatest Bengali of the past thousand years. The future will call him the superman of eternal time. And he will live, in luminosity reminiscent of a bright star, in historical legends. He will show the path to the Bengali nation his dreams are the basis of the existence of the nation. A remembrance of him is the culture and society that Bengalis have sketched for themselves. His possibilities, the promises thrown forth by him, are the fountain-spring of the civilized existence of the Bengalis.
He is a friend to the masses. To the nation he is the Father. In the view of men and women in other places and other climes, he is the founder of sovereign Bangladesh. Journalist Cyril Dunn once said of him, “In the thousand – year history of Bangladesh, Sheikh Mujib is the only leader who has, in terms of blood, race, language, culture and birth, been a full – blooded Bengali. His physical stature was immense. His voice was redolent of thunder. His charisma worked magic on people. The courage and charm that flowed from him made him a unique superman in these times.”Newsweek magazine has called him the poet of politics.
The leader of the British humanist movement, the late Lord Fenner Brockway once remarked, “In a sense, Sheikh Mujib is a great leader than George Washington, Mahatma Gandhi and De Valera.” The greatest journalist of the new Egypt, Hasnein Heikal (former editor of Al Ahram and close associate of the late President Nasser) has said, “Nasser is not simply of Egypt. Arab world. His Arab nationalism is the message of freedom for the Arab people. In similar fashion, Sheikh Mujibur Rahman does not belong to Bangladesh alone. He is the harbinger of freedom for all Bangalis. His Bengali nationalism is the new emergence of Bengali civilization and culture. Mujib is the hero of the Bengalis, inn the past and in the times that are.Embracing Bangabandhu at the Algiers Non – Aligned Summit in 1973, Cuba’s Fidel Castro noted, “I have not seen the Himalayas. But I have seen Sheikh Mujib. In personality and in courage, this man is the Himalayas. I have thus had the experience of witnessing the Himalayas.
Upon hearing the news of Bangabandhu’s assassination, former British Prime Minister Harold Wilson wrote to a Bengali Journalist, “This is surely a supreme national tragedy for you. For me it is a personal tragedy of immense dimensions.” Refers to the founder of a nation-state. In Europe, the outcome of democratic national aspirations has been the rise of modern nationalism and the national state. Those who have provided leadership in the task of the creation of nations or nation-states have fondly been called by their peoples as founding fathers and have been placed on the high perches of history. Such is the reason why Kamal Ataturk is the creator of modern Turkey. And thus it is that Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman is the founder of the Bengali nation – state and father of the nation of his fellow Bengalis. But in more ways than one, Sheikh Mujib has been a more successful founding father than either Ataturk or Gandhi. Turkey existed even during the period of the Ottoman Empire. Once the empire fell, Ataturk took control of Turkey and had it veer away from western exploitation through giving shape to a democratic nation – state. In Gandhi’s case, India and Indians did not lose their national status either before or after him. But once the British left the subcontinent, the existence of the Bengali nation appeared to have been blotted out. The new rulers of the new state of Pakistan called Bangladesh by the term “East Pakistan” in their constitution. By pushing a thousand – year history into the shadows, the Pakistani rulers imposed the nomenclature of “Pakistanis” on the  Bengalis, so much so that using the term “Bengali” or “Bangladesh” amounted to sedition in the eyes of the Pakistani state.
The first man to rise in defense of the Bengali, his history and his heritage, was Sheikh Mujibur Rahman. On 25 August 1955, he said in the Pakistan Constituent Assembly, “Mr. Speaker, they ( government) want to change the name of East Bengal into East Pakistan. We have always demanded that the name ‘Bangla’ be used. There is a history behind the term Bangla. There is a tradition, a heritage, If this name is at all to be changed, the question should be placed before the people of Bengal: are they ready to have their identity changed?”
Sheikh Mujib’s demand was ignored. Bangladesh began to be called East Pakistan by the rulers. Years later, after his release from the so – called Agartalas case, Sheikh Mujib took the first step toward doing away with the misdeed imposed on his people. On 5 December 1969, he said, “At one time, attempts were made to wipe out all traces of Bengali history and aspirations. Except for the Bay of Bengal, the term Bengal is not seen anywhere. On behalf of the people of Bengal, I am announcing today that henceforth the eastern province of Pakistan will, instead of being called East Pakistan, be known as Bangladesh.” Sheikh Mujib’s revolution was not merely directed at the achievement of political freedom. Once the Bengali nation – state was established, it become his goal to carry through programmes geared to the achievement of national economic welfare. The end of exploitation was one underlying principle of his programme, which he called the Second Revolution. While there are many who admit today that Gandhi was the founder of the non – violent non – cooperation movement, they believe it was an effective use of that principle which enabled Sheikh Sheikh Mujib to create history. Mujib’s politics was a natural follow – up to the struggle and movements of Bengal’s mystics, its religious preachers, Titumir’s crusade, the Indigo Revolt, Gandhiji’s non – cooperation, and Subhash Chandra Bose’s armed attempt for freedom. The secularism of Deshbandhu Chittaranjan Das, the liberal democratic politics of Sher-e-Bangla A. K. Fazlul Hague and Huseyn Shaheed Suhrawardy Contributed to the molding of the Mujib character. He was committed to public welfare. Emerging free of the limitations of western democracy, he wished to see democracy sustain Bengali nationalism. It was this dream that led to the rise of his ideology. At the United Nations, he was the first man to speak of his dreams, his people’s aspiration, in Bangla. The language was, in that swift stroke of politics, recognized by the global community. For the first time after Rabindranath Tagore’s Nobel achievement in 1913, Bangla was put on a position of dignity. The multifaceted life to the great man cannot be put together in language or color. The reason is put on; Mujib is greater than his creation. It is not possible to hold within the confines of the frame the picture of such greatness. He is our emancipation – today and tomorrow. The greatest treasure of the Bengali nation is preservation of his heritage, a defense of his legacy. He has conquered death. His memory is our passage to the days that are to be.
ABDUL GAFFAR CHOUDHURY
www.bangabandhu.org/

Tuesday, May 17, 2011

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ


শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ ১৭ মে।
দীর্ঘ নির্বাসন শেষে ১৯৮১ সালের এই দিনে তিনি দেশে ফিরে আসেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মানবতার শত্র" ঘৃণ্য ঘাতকদের হাতে সপরিবারে নির্মমভাবে নিহত হন। ঐ সময়ে বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা প্রবাসে থাকায় ঘাতকদের নির্মমতার হাত থেকে রেহাই পান। ১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্র"য়ারি অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস-বায়নের দৃঢ় অঙ্গীকার, সপরিবারে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার, স্বৈরতন্ত্রের চিরঅবসান ঘটিয়ে জনগণের হৃত গণতান্ত্রিক অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা, সার্বভৌম সংসদীয় পদ্ধতির শাসন ও সরকার প্রতিষ্ঠার শপথ নিয়ে বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী নির্বাচিত করা হয়।১৭ মে ১৯৮১ সাল; সারা দেশের গ্রামগঞ্জ, শহর-বন্দর থেকে লাখ লাখ অধিকারবঞ্চিত মুক্তিকামী জনতা সেদিন ছুটে এসেছিল রাজধানী ঢাকায়। স্বাধীনতার অমর স্লোগান ‘জয় বাংলা’ ধ্বনিতে প্রকম্পিত হয়েছিল ঢাকার আকাশ-বাতাস। জনতার কণ্ঠে বজ্রনিনাদে ঘোষিত হয়েছিল ‘হাসিনা তোমায় কথা দিলাম-পিতৃ হত্যার বদলা নেবো’‘শেখ হাসিনার আগমন, শুভে"ছা স্বাগতম’, ধ্বনিতে মুখরিত হয়েছিল রাজধানী শহর ঢাকা।বস'ত, ১৭ মে ১৯৮১ আবারো প্রমাণিত হয়েছিল, ‘মুজিব বাংলার, বাংলা মুজিবের’ লাখো জনতার প্রাণঢালা উষ্ণ সম্ভাষণ এবং গোটা জাতির স্নেহাশীষ ও ভালোবাসার ডালা মাথায় নিয়ে প্রিয় স্বদেশভূমিতে ফিরে এসেছিলেন জনতার আশীর্বাদধন্য নেত্রী, আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা। সেদিন গগন বিদারী মেঘ গর্জন, ঝঞ্ঝা-বিড়্গুব্ধ প্রকৃতি যেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যার বদলা নেয়ার লড়্গ্যে গর্জে উঠেছিল, আর অবিরাম মুষলধারে বারি-বরষণে যেন ধুয়ে-মুছে যা"িছল বাংলার মাটিতে পিতৃহত্যার জমাট বাঁধা পাপ আর কলঙ্কের চিহ্ন। ঝড়-বাদল আর জনতার আনন্দাশ্র"তে অবগাহন করে শেরে বাংলা নগরে লাখ লাখ জনতার সংবর্ধনার জবাবে শেখ হাসিনা সেদিন বলেছিলেন, সব হারিয়ে আমি আপনাদের মাঝে এসেছি। আমার আর হারাবার কিছুই নেই। পিতা-মাতা, ভাই রাসেলসহ সকলকে হারিয়ে আমি আপনাদের কাছে এসেছি, আমি আপনাদের মাঝেই তাদেরকে ফিরে পেতে চাই। আপনাদের নিয়েই আমি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথে তা বাস-বায়ন করে বাংলার দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটাতে চাই, বাঙালি জাতির আর্থ-সামাজিক তথা সার্বিক মুক্তি ছিনিয়ে আনতে চাই। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী হিসেবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ফলে দেশে গণ-জাগরণের ঢেউ জাগলো, গুণগত পরিবর্তন সূচিত হলো আন্দোলনের, সংগঠনের সঙ্গে নতুন করে গণসম্পৃক্ততা সৃষ্টি হলো ব্যাপকভাবে।
দেশবাসী নতুন আলোর দিশা পেলো। সভানেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পরিচালিত আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কর্মতৎপরতা, স্বৈরাচারবিরোধী মুক্তি আন্দোলন এবং গণমানুষের অধিকার আদায়ে সংগ্রামী ইতিহাসের নতুন দিগন- উন্মোচিত হলো সেদিন থেকে।দেশে ফেরার পর থেকেই শেখ হাসিনা নিরলসভাবে দেশের অধিকারহারা মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য নিরব"িছন্ন লড়াই সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছেন। এদেশের অধিকারহারা মানুষের মুক্তির লড়্গ্যে আন্দোলন সংগ্রাম করার ‘অপরাধে’ তাকে বারবার ঘাতকদের হামলার শিকার ও কারা নির্যাতন ভোগ করতে হয়েছে। জনগণের ভালোবাসায় অভিষিক্ত হয়ে দ্বিতীয়বারের মতো রাষ্ট্র পরিচালনার সুযোগ পেয়ে তিনি দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন এবং সকল শ্রেণী ও পেশার জনগণের কল্যাণে যুগান-কারী অবদান রেখে চলেছেন। দীর্ঘদিনের অগণতান্ত্রিক স্বৈরশাসন কবলিত জীর্ণ বাংলাদেশকে তিনি একটি উন্নত আধুনিক অসামপ্রদায়িক গণতান্ত্রিক প্রগতিশীল রাষ্ট্রে পরিণত করার সংগ্রামে নিয়োজিত রয়েছেন।

Saturday, September 18, 2010

"LIVE STYLE OF MY FATHER" Sheikh Hasina

"LIVE STYLE OF MY FATHER" 

by Sheikh Hasina

BANGABANDHU SHEIKH MUJIBUR RAHMAN DEDICATED his life to establishing a democratic, peaceful and exploitation-free society called "Sonar Bangla" - Golden Bengal. He sacrificed his life to liberate the Bangalee nation, which had been groaning under the colonial and imperialist yoke for nearly 1,000 years. He is the founding father of the Bangalee nation, generator of Bangalee nationalism and creator of the sovereign state of Bangladesh.

My father spent nearly half his life behind bars and yet with extraordinary courage and conviction he withstood numerous trials and tribulations during the long period of his political struggle. During his imprisonment, he stood face to face with death on at least two occasions, but never for a moment did he waver.
 
As a daughter of Sheikh Mujibur Rahman, I heard many tales about him from my grandfather and grandmother. He was born on Mar. 17, 1920 in Tungipara, in what was then the British Raj. During the naming ceremony my great-grandfather predicted that Sheikh Mujibur Rahman would be a world-famous name.
My father grew up rural - amid rivers, trees, birdsong. He flourished in the free atmosphere inspired by his grandparents. He swam in the river, played in the fields, bathed in the rains, caught fish and watched out for birds' nests. He was lanky, yet played football. He liked to eat plain rice, fish, vegetables, milk, bananas and sweets. His care and concern for classmates, friends and others was well-known. He gave away his tiffin to the hungry, clothes to the naked, books to the needy and other personal belongings to the poor. One day, my grandfather told me, he gave his clothes to a poor boy and came home in his shawl.

At the age of 7, he began his schooling, though an eye ailment forced a four-year break from his studies. He married at the age of 11 when my mother was 3. He demonstrated leadership from the beginning. Once in 1939, he led classmates to demand repair of the school's roof - just when the premier of then undivided Bengal happened to be in town. Despite a deep involvement in politics, in 1946 he obtained a BA.

Bangabandhu was blessed from boyhood with leadership, indomitable courage and great political acumen. He played an active role in controlling communal riots during the India-Pakistan partition. He risked his life for the cause of truth and justice. He rose in protest in 1948 against the declaration of Urdu as the state language of Pakistan and was arrested the following year. He pioneered the movement to establish Bangla as the state language. In 1966, he launched a six-point program for the emancipation of Bangalees. In 1969, my father was acclaimed Bangabandhu, Friend of Bengal. His greatest strength (and weakness) was his "love for the people." He is an essential part of the emotional existence of all Bangalees.

The appearance of Bangladesh on the world map in 1971 was the culmination of a long-suppressed national urge. On Mar. 7, 1971, my father addressed a mammoth public meeting in Dhaka and declared: "The struggle now is the struggle for our emancipation; the struggle now is the struggle for Independence." He sent a wireless message, moments after a crackdown by the Pakistani army, declaring the Independence of Bangladesh in the early hours of Mar. 26. The world knows he courted arrest - and yet Bangabandhu emerged as the unquestioned leader of a newborn country.

Once in power, my father pursued a non-aligned, independent foreign policy based on peaceful coexistence. Its basic tenet: "Friendship to all, malice to none." He advocated world peace and declared his support for all freedom struggles. He supported the concept of a "Zone of Peace" in the Indian Ocean. In 1974, he was awarded the Julio Curie Prize for his devotion to the cause of peace.

But at a time when Bangladesh was emerging as an advocate for oppressed nations, his foes assassinated him on Aug. 15, 1975. My mother and three brothers were also killed. Even my younger brother Sheikh Russel, who was then nine, was not spared. The only survivors were my younger sister Sheikh Rehana and myself; we were on a trip to Germany.

Consequently, the political ideals for which Bangladesh sacrificed three million of her finest sons and daughters were trampled, and Bangladesh became a puppet in the hands of imperialism and autocracy. By assassinating Sheikh Mujibur Rahman, the conspirators wanted to stop the country's march to freedom, democracy, peace and development. The process of law and justice were not permitted to take their course; human rights were violated. It is, therefore, the solemn responsibility of freedom- and peace-loving people to help ensure the trial of the plotters and killers of this great leader, my father. Sheikh Hasina, daughter of the late Sheikh Mujibur Rahman, is the prime minister of Bangladesh.