Friday, August 26, 2011

শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র এখনও চলছে: আওয়ামী লীগ

শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র এখনও চলছে: আওয়ামী লীগ
শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র এখনও চলছে: আওয়ামী লীগ
এ দেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবে, ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলারও বিচার হবে: আওয়ামী লীগ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র এখনও চলছে। সে ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের ক্ষেত্র প্রস্তুতের চেষ্টাও চলছে। কিছু কিছু মিডিয়া অতিরঞ্জিত সংবাদ পরিবেশন করে এ ক্ষেত্র প্রস্তুতে সহযোগিতা করছে। এ বিষয়ে সজাগ থাকার জন্য দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। অন্যদিকে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরাপত্তায় অত্যন্ত সতর্ক থাকতে হবে। শেখ হাসিনাকে হত্যাই ছিল ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মূল লক্ষ্য।  ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট খুনিদের পরিকল্পনা ছিল কেবল বঙ্গবন্ধুই নন, তার পরিবারের সবাইকেই হত্যা করার। এরই ধারাবাহিকতায় শেখ হাসিনার দেশে ফেরার পর নতুন করে তাকেও হত্যার ষড়যন্ত্র শুরু হয়। সেই ষড়যন্ত্র এখনও চলছে। যে কোনো সময় সুযোগ পেলেই তাকে হত্যা করা হতে পারে। আওয়ামী লীগের ঐক্য নষ্ট করতে অনেকে অনেক কথা বলছেন। অতীতেও আমরা ঐক্যবদ্ধ ছিলাম, আগামীতেও থাকব। শেখ হাসিনা নেতৃত্বে থেকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। যত ষড়যন্ত্রই হোক না কেন, এ দেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হবেই। তবে তার আগে ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার বিচার হওয়া উচিত। 'সব সাংবাদিকই সাংবাদিক নন। সব সংবাদপত্রই সংবাদপত্র নয়।
সব খবরও বস্তুনিষ্ঠ নয়। এখানে এমন একটি পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে, যাতে নেতায় নেতায় দ্বন্দ্ব; মন্ত্রী ও এমপির সঙ্গে কর্র্মীদের এবং সরকারের সঙ্গে আওয়ামী লীগের দূরত্ব সৃষ্টি হয়। কেননা, তারা জানে আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ ও সজাগ থাকলে কোনো ষড়যন্ত্রই বাস্তবায়িত হবে না। তাই অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে আমাদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টা চালানো হচ্ছে।আমাদের কি সংসদ, গণতন্ত্র ও নেতৃত্বের অভাব পড়েছে? দেশ কি দুর্নীতিতে ভরে গেছে যে, আমাদেরও আন্না হাজারের প্রয়োজন হবে? ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সাত বছর পর বিএনপি নেতারা হঠাৎ প্রেস কনফারেন্স করে বলছেন, জজ মিয়াই এই ঘটনা ঘটিয়েছে। এটা আদালতের বিচারাধীন বিষয়। একটি রাজনৈতিক দলের প্রেস কনফারেন্স কিংবা প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এ বিষয়ে কোনো কথা বলা অপরাধ। এ বিষয়ে আপনাদের কোনো বক্তব্য কিংবা প্রশ্ন থাকলে সেটা আদালতে গিয়েই বলবেন। কিন্তু এটা নিয়ে রাজনৈতিক ইস্যু তৈরির চেষ্টা করবেন না। কোনো লাভও হবে না। ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলা করে হত্যার বিচার অবশ্যই বাংলাদেশের মাটিতে হবে। অপরাধীদের ফাঁসিকাষ্ঠে ঝুলতেই হবে।'
২১ আগস্টের মূল পরিকল্পনাকারী ও খুনিদের আড়াল করতে সেদিন তারা জজ মিয়া নাটক তৈরি করতে চেয়েছিল। বাংলার মানুষ সেই নাটক শেষ করতে দেয়নি। বঙ্গবল্পুব্দ হত্যার বিচার ও রায় কার্যকর হয়েছে। এবার গ্রেনেড হামলায় প্রকৃত জড়িতদের বিচারও হবে। শাস্তিও কার্যকর হবে। 

2 comments: